Project name: HarvestPlus Bangladesh

Donor: CGIAR (Consultative Group for International Agriculture Research)

Duration: From 15-11-2017 to 14-11-2018

Project summary (2017-18):

During reporting period SDS and HarvestPlus Bangladesh established 100 demonstration plots on zinc enriched modern rice variety of BRRI dhan74,72&62 and more 3500 free seed plots have also been established through BRRI dhan62,72 & BRRI dhan74 zinc enriched rice variety. In addition, 4 farmers training, 7 yard meetings, 4 field days and 5 school program have successfully completed up to this reporting period.  Capacity building has done among large number of farmers on improved rice-based technologies.  The specific project outcome is to improve food and nutrition security by the enhanced and sustained rice productivity through the promotion of zinc enriched modern rice varieties.

Goal: HarvestPlus leads a global effort improves nutrition and public health by developing and disseminating staple food crops that are rich in vitamins and minerals.

Objectives: The project will contribute to improve food and nutrition security by the enhanced and sustained rice productivity through the promotion of zinc enriched modern rice varieties.

Human Resources

Sl.#

Name

Designation

Part-time/ Full-time

Cell number

E-mail address

1

Md.Mostofa Kamal

Project coordinator

Full Time

01718082497

This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

2

Md. Asaduzaman Shahin

Senior Accountant

Part-time

01791086235

This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

3

Sharif Uddin Ahmed

MIS Officer

Part-time

01715941222

This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

Working Area: Our project area are at Shariatpur sadar, Jajira,Damudya and Bhedorganj upazila in Shariatpur district and Madaripur sadar in Madaripur district.

Project Activities:  Project activities are at 2017-18, seed distribution at boro and amon season, 4 farmers training, 7 yard meetings, 4 field days and 5 school program up to this period.

Case Studies:

A Progressive  Farmer

Mahamuda Begum,Choturpara, Madaripur.

Contact Number: 01937132585

 Mahamuda Begum is a poor farmer in Choturpara Village under Madaripur sadar upazilla of Madaripur District. She is 36 years old and mother of two daughters and one son. Her elder son is the student of class nine.  One daughter of them is a student of class-Seven and another is class-Two. She is a housewife and her husband Md. Akbor kha is a small business holder.

 In 2017, Harvest Plus Bangladesh and SDS introduced her with Zinc enriched rice variety BRRIdhan72. She became interested to grow this variety as it can be the alternative source for Zinc Syrup, which she knew from SDS personnel. Then she joined a group through the NGO, Shariatpur Development Society (SDS) and received a day-long training program on seed production, processing and storage of Zinc enriched BRRI dhan72. She received total 3kg seed of BRRI dhan72 with other inputs through Harvest Plus Bangladesh and SDS. She used different technologies such as land preparation, proper seedling age, and application of balance fertilizer and protection of crops from insects and pests without using any insecticide and pesticide in her rice field. She gained proper implementation technique by the close monitoring of SDS Team. As a result, she obtained 690kg rice from 30 decimals of land. She stored 40 kg rice as seed and several farmers ensured that they will buy seed from her. Now she assumes that BRRI dhan72 will ensure food and nutritional demand especially from Zinc deficiency problem to her family. She also introduced this zinc enriched modern rice variety with its production technologies to her neighbors. Now she can lead her family very smoothly with her husband. Now her three children One son, two daughters) are going to school regularly. Moreover, she discovered herself as a decision making person in her family as well as increased her social dignity.

 Budget: Project budget 661050 Tk.

Total Beneficiaries:

                            Year                                                          Beneficiaries

                            2014-15                                                            325

                              2015-16                                                           50

                             2016-17                                                        3550

                             2017-18                                                        3600

                               Total                                                           7525

Beneficiaries Criteria:

In respect of community selection process we gave emphasize on some points such as,

  • Majority of the community are farmers
  • Most of them grow rice in Boro and Amon season
  • Having interest to adapt new variety without any hesitation
  • Farmer’s who have at least 20 decimal cultivable lands.

Project Name: Promoting Sustainable Agricultural Technologies for Climatic vulnerable Char-dwellers (PSAT- Phase-II)

Donor: Christian aid

Duration: 1st May 2018 to 31 March 2020

Project Summary: The vision of success is that targeted landless and smallholding households in char area of Bangladesh have increased incomes and more sustainable livelihoods through incorporation into a strengthened safe vegetable value chain approach.  The project’s complementary interventions at different stages of the safe vegetable value chain will group and strengthen landless and smallholding producers and connect them with the market; facilitate the development of quality commercial agriicultural service providers and improve access to their services; reduce spoilage by introducing a location-appropriate, innovative and efficient collection, storing,   and transportation system; create employment and increase incomes for the char dwellers, particularly women, at various points along the chain; and remove bottlenecks in the chain.  By the end of the two years project, 1200 smallholding and landless safe vegetable producers will increase their income. The project will also create employment opportunities for extremely poor households through employment in collection systems and post harvest management especially processing.  The project design is based on investment from the private sector and development of profit-driven infrastructure, making it sustainable.  It can potentially be scaled up to benefit an estimated 50000 farmers across Bangladesh.

This increase in vegetable and sector productivity will translate into increased income for farmers, resulting in an increase in household expenditure on food and non food items such as education, health, and sanitation; from past experience, the non-food household budget will increase around 40-45 per cent. SDS will track household expenditure changes in a selection of households and measure changes in relevant indicators such as food intake patterns of women and children.  Increased income in both of the vegetable sector will contribute to the overall growth of the agriculture sector as well as the national economy.

Goal: Developed a sustainable approach to poverty eradication, by enhancing the existing livelihoods for the people living in the backward char areas.

Objectives: The proposed project plans to achieve its vision by linking producers with service providers, traders collection point.; transporting the processed vegetable to formal sector like super shops and/or informal sector local market and documenting and disseminating efficient techniques and best practices. Achieving the expected impact will involve improving producer practices to attain efficient, quality production, and improving market linkages, prices, and incentives to stimulate increased production.

Head line wise objectives:

Objective 1: Safe vegetable production increased by reducing chemical fertilizer and pesticide in farmer level of char area

Objective 2: Improve access to inputs, markets, and services by mobilizing groups of poor farmers, producers, and char dwellers

Objective 3: Improve the vegetable transport network

Human Resource: Directly four persons are involved of this project and indirectly another 24 persons are involved. Among this 01 person Project Coordinator, 02 persons Field Facilitator, 01 person accountant and 24 persons lead farmer (Volunteer services).

Working Area: Three Unions ( Kanchikata, Charbhaga, Uttartarabunia) of Bhedargonj Upazila under Shariatpur district.

Fig: Project area map (Red mark portion)

Project Activities:

  • Potential lead farmers identification
  • Provide TOT to the potential farmers on farming skills facilitation (2 days)
  • Beneficiary (Farmer) selection and group formation
  • Distribute Tabs or Android phone among the lead farmers for use of Fertilizer recommendation and other agricultural informatio:
  • Workshop with Vegetable market actors (Arotdar/ traders/ Wholesaler) on Safe vegetable market extension
  • Tripartite MOU signing among Urban super-shop, Safe vegetable suppliers and SDS for wider market development
  • Awareness meeting with AEO, Agricultural goods suppliers and marketing officials about bad impact of excessive use of pesticide and chemical fertilizer
  • Training on Vermin compost as an Innovative Income Generative Activities
  • Producer develop on vermin compost production
  • Support/Develop Micro enterprise for vermin compost
  • Safe vegetable production plot demonstration
  • Training on soil test kits handling
  • Mobile apps registration and training
  • Develop video documentary for safe vegetable market extension
  • Improve the safe vegetable collection point/ Sales center
  • Introduce Vegetables and fruits toxicity test kits and devices in collection point
  • Newsletter publication on safe vegetable
  • Poster/ leaflet printing and publication on safe vegetable
  • Maintain the vegetable farmers Income-expenditure record book
  • Linkage development with urban super-shop
  • Training on post harvest management systems (processing, , marketing and storage) of the vegetable
  • Farmers meeting by potential/lead farmer on future action on field crops ( 3 meeting in different 3 cropping seasons
  • Support for modify the small and portable irrigation pumps with solar pannel
  • Monthly meeting and refreshers for potential farmer including volunteer allowances
  • Support for established low cost natural mini cold storage
  • Linkage development workshop with Farmers and MFI to ensure seasonal loan
  • Disaster preparedness meeting with Upazila and Union DMC
  • Conduct exiting PVCA review meeting with DMC member (Upazila, Union and Ward)
Case Study Of Farmer Rahim
Farmer Mst. Rahima is the inhabitant of Kachikata union under Bhedorgonj Upazila of Shariatpur district. Before her marriage she has completed SSC.  After her marriage, she cultivated her husband’s land .Because her husband is working in abroad. She cultivated potato, chili, sweet gourd, bottle gourd, ash gourd, red amaranth and Indian spinach. Yield of her land is more than others. So farmers came to her land to see the cultivation procedure and yield. She describes her production technique to the interested farmers. This year PSAT (Promoting Sustainable Agricultural Technology for Climatic Vulnerable Char-Dwellers) Project personnel went to her village for identification of Lead farmer. Most of the farmers of that village said she is the most qualified person as a lead farmer. After joining as a lead farmer of PSAT project, she has got more climates adaptive modern agriculture related ICT based training. Now she is trained lead farmer. She is arranged and facilitated season based court yard session of that village. Also she is gone to farmer’s field and try to solve their problem by the help of agril website supported Android mobile phone. In future her aim, she will be adapted new technology and serve in the farmer.    Farmers are pleased of her. We seem that it is the successful strategy of Farmers Rahima. If it is ongoing, the agriculture of this area will be increased. So it is the helpful for remove the hunger and poverty in this area. And its effects will be shown nationally
 

 

 Case study of Farmer Md. Amjad Hossain

Farmer Md. Amjad Hossainr is the inhabitant of Kachikata Char area  under Bhedorgonj Upazila of Shariatpur District. He is a group member of PSAT project of SDS. He has been cultivating his land (lease) during less than 8 years. Every year his solanecy  and  gourd family crops production damaged 1/4th due to twig borer and  fruit fly insect (Local name mainda poka) infestation. He didn’t know how to control it biologically low cost system. Every year he would be used huge amount of insecticide for twig borer and  fruit fly insect infestation control. But they didn’t control it effectively. And also they had expensed lot of money. After joining PSAT project , he has received more training and court yard session like as advance cropping technique, Organic fertilizer production, Sex pheromone trap use, Video session of Sex pheromone trap use ,Hand pollination system. This year we have supported sex pheromone trap, seed and small scale  organic fertilizer production plant to him. He has used sex pheromone trap of his solanecy crop and  bitter gourd crop field fortwig borer and  fruit fly insect control. After few days he invited us to see his sex pheromone trap use plot and he said that it is very helpful. And also he said  that there is no insect infested fruit in his plot. Again he said that  this year he didn’t use insecticide for insect control. As a result his production cost was decreased and yield was increased. Coming season he will be used organic fertilizer and sex pheromone trap of his sweet gourd crop for safe vegetable production.

 
 Case Study Of Farmer Asma

Farmer Mst. Asma is the inhabitant of Kachikata union under Bhedorgonj Upazila of Shariatpur district. Before her marriage she has completed class eight.  Her age is 25 years. After her marriage, she helps her husband’s for cultivation .Now she is a member of PSAT project. After joining PSAT project she attend more court yard session and got a vermin compost production training and logistic support.  She cultivated chili, sweet gourd, bottle gourd, ash gourd, red amaranth. Yield of her land is more than others due to use of cow dung and recommended dose of fertilizer. Already she started vermin compost production and few days ago she has harvested vermin compost. Coming season she will be used vermin compost of her own field. And   if her compost production is increasing day by day , she will be sold her compost to the another farmer .  Beside this her excess vermin will be supplied another farmer. As a result vermin compost production will be increased in this area.  So farmers will be used available form of organic manure of their cultivable land.  Ultimately farmers production cost will be reduced and soil will be protected from harmful effect of excess use of chemical fertilizer .We seem that it is the successful strategy of Farmers Asma. If it is ongoing, the agriculture of this area will be increased. So it is the helpful for remove the hunger and poverty in this area. And its effects will be shown nationally.

 Total Beneficiaries:

Categories

 Female

 Male

 Direct participants

 Replicators

Total

 Landless

 400

 200

 600

 3600

4200

 Small holders

 400

 200

 600

 3600

4200

 Total

 800

 400

 1200

 7200

8400

 Project staff will be formed group by the help of lead farmer. In each group 25 members are involved. Our total direct beneficiaries are 1200. They will be formed 48 groups. Total beneficiaries of the project are 8400 including replicators.

 Beneficiaries Crite

Criteria of direct beneficiaries’ selection:

  1. Landless, day laborers and marginal farmer owning less than 50 decimal land.
  2. Highly vulnerable for natural disaster and climate change
  3. Women headed households
  4. Interested to involve Natural Disaster and Climate Change Resilient alternative livelihood option
  5. Permanently live in the village of deep
  6. Nominal and no access to basic services

Project staff will visit UP to discuss about the project. After clearing them about project activities and strategies consent and support of UP will be requested. UP will provide primary information and directives for identification of direct beneficiaries of above categories except NGOs, CBOs, Media and government officials. SDS team and project staff will visit each village to identify direct beneficiaries including community people. They will prepare a preliminary list of direct beneficiaries in the beginning month of the project start

 Project Picture Gallery:

View the embedded image gallery online at:
http://www.sdsbd.org/medias/9-sdscontent#sigProGalleria81bbf9c1fa

Project Name: Increasing Famer’s Income by Introducing Safe Cultivation Method of High Value Vegetables

Project Donor: Palli Karma-Shayak Foundation (PKSF)

Duration: May 2017 to April 2020

Project Summary: Agricultural sector is the main pillar of the economy of Bangladesh providing livelihood for 70% of the population. Agriculture plays a very important role in productivity, income, and rural employment. In Bangladesh, cultivable land is about 85.05 hundred thousand hectors, among which 2.78 hundred hectors is in the vegetable sub-sector. Agricultural sector employs 47.5% of the total labor force. In 2013-2014, agricultural sector contributed 16.33% in the Gross Domestic Product (GDP) of the country, while crop sub-sector alone contributed 12%.

Vegetable is an important sub-sector of agriculture in Bangladesh. Vegetable provides necessary nutrition and other micronutrient for human body. One of the main obstacles of vegetable cultivation is different types of disease and attacks of pests. Attack of diseases alone decrease vegetable production by 25%, and farmers in Bangladesh are dependent on different types of pesticides and chemicals for solving this problem. Indiscriminate use of pesticides is increasing day by day. During the period of 1997-2008, use of pesticides increased by 328.4%. Although, 80% of these pesticides are used in rice cultivation, the frequency and amount of pesticide usage is higher in vegetable cultivation in terms of cultivating per unit of land.

Insecticides are major items of pesticides which accounts total 76% of pesticides. Its usages have been increased by 598% (since when?) and, Bangladesh loses $171.43 million in importing pesticides from different countries (time span). Although, only 200 pesticide importers are registered with Bangladesh Crop Protection Association (BCPA), about 400 companies import and sell approximately 37,000 tons of pesticides annually (K. M. Atikur Rahman, and Sankar Chandra Debnath, 2015).

Usually, famers use expired pesticides irregularly and in unplanned way, which do not kill the insects, rather, increase their tolerance against pesticides. As a result, farmers have to use more pesticides to destroy insects that cause extermination of beneficial insects, and incur more financial costs. Most of the vegetables available in markets contain a high level of pesticides and chemicals, which causes different diseases to human health such as skin disease, respiratory disease, memory loss, depression, and diabetes. People incur a high cost in treatment of these diseases. Pesticides get mixed with water bodies and kill fishes in ponds and rivers reducing land fertility. All of these problems can be solved by introducing safe vegetable production (K. M. Atikur Rahman, Hortex).

Although farmers in the project area have been cultivating regular vegetables for a long time, they are not cultivating high value vegetables like, tomato, cherry, capsicum, lettuce etc. They do not have proper knowledge about different methods of modern farming such as identifying good seeds, plot preparation, applying appropriate mixture of fertilizer, planting seeds, and irrigation. Usually, they apply a higher amount of chemical fertilizer and pesticides than it is required. Despite of having knowledge about negative impact of chemical fertilizers, they cannot reduce their dependence on these as they do not have any other viable alternative. They are not aware about organic pesticides such as pheromone traps, trichoderma, and trichogramma. Most of the farmers use cow dung of their own cows as fertilizer. Farmers' dependence on chemical fertilizers can be reduced by introducing “Vermi compost” technology and by training them on using this. This method can increase land fertility and reduce production cost of vegetables.

Chemical fertilizers and pesticides used in vegetable cultivation are directly and indirectly transmitted to human body which has serious negative consequences on our health and wellbeing. Besides, there are some vegetables which we consume directly as green, and in this case, we are consuming the chemicals directly. This even makes grass and livestock feed poisonous which again gets transmitted to our body through milk and meat. Globally, one million poisonous causalities occur resulting 2000 fatalities. Now a day, sexual and urinary diseases have spread across the world due to availability of various chemicals and pesticides in the environment. For example, sperm-count in Europe has reduced by about 50 percent and pesticides usage in Bangladesh has been causing low level of testosterone. Chemicals may cause chronic health problems that include cancers, reproductive and endocrine disruption, neurological damage and dysfunction of immune system. About one-half of the human poisonings occur in poorer, less-developed countries, even though these places account for only 20% of the world’s use of pesticides.

Project Goal: The goal of the project is to create employment and increase income of farmers by production and marketing of high value and harmful chemical free vegetables adopting modern techniques and commercial methods.

Project Objective:

  1. Introducing modern agricultural production technology in vegetable subsector.
  2. Producing safe vegetable following good agricultural practices.
  3. Promoting production of high value vegetable like summer tomato, cherry tomato, broccoli, capsicum etc.
  4. Introducing bio fertilizers like vermi compost.
  5. Increasing productivity and income of the farmers, and
  6. Creating new employments in the vegetables subsector.

Human Resource: Total Staff- 10, VCF- 1, AVCF- 7, MO- 1, Accountent- 1, (M- 7, F- 3)

Working Area: Jajira, Naria and Bhedorganj under Shariatpur District.

Case Studies:

সফল চাষি আলী সরদারের সফলতার গল্প

নাম আলী সরদার জাজিরা উপজেলার চর খোড়াতলা গ্রামের ১৯৫৮ সালে জন্ম গ্রহণ করেন বর্তমানে তার বয়স ৬০ বৎসর। তিনি ৫টি কন্যা সন্তানের জনক। তিনি ৪র্থ শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। তার বাবার থেকে পাওয়া চাষাবাদের মোট ৬৬ শতাংশ জমি রয়েছে। তা থেকে যা আসে তাই দিয়ে অতি কষ্টে দিন কাটায়। সে তার জমিতে বিভিন্ন ধরনের সব্জি চাষাবাদ করে এবং তা বারবার লোকসানের মুখে পড়ে বা কোন কোন বছর সামান্য লাভও দেখে। তার ফসল ফলাতে প্রচুর পরিমাণে রাসায়নিক সার ও কিটনাশক ব্যবহারের ফলে তেমন লাভ থাকে না। তাই তিনি দিন দিন হতাশ হয়ে পড়েন।

২০১৭ সালের জুলাই মাসে উনার গ্রামে PACE প্রকল্পের আওতায় নিরাপদ পদ্ধতিতে সাধারণ ও উচ্চ মূল্যের সব্জি চাষের মাধ্যমে কৃষকের আয় বৃদ্ধিকরণ উপ-প্রকল্পটির ১টি সাধারণ মিটিং করা হয় এবং তাতে তিনি সদস্য হওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। প্রকল্পটির মাঠ পর্যায়ের সহকারী ভ্যাল্যু চেইন ফ্যাসিলিটেটর জনাব মোঃ ফয়সাল আহমেদ সে এলাকায় প্রকল্পের দল গঠন করে এবং তাকে দলের সদস্য বানিয়ে নেন। ইতি মধ্যে তিনি প্রকল্পের দেয়া ১দিনের প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন ও সে মতে কাজ শুরু করেন।িইতি মধ্যে তিনি ভার্মি কম্পোস্ট তৈরীও করে ফেলেন।

তিনি গত মার্চ মাসে ১৮ শতাংশ জায়গায় জমিতে আগাম শশা (আলাভি গ্রীণ) চাষ করেন, যাতে রমজান মাসে বেশী দামে শশা বিক্রি করতে পারেন। তার সেই লক্ষ্যও পূরণ হয়। তিনি তার উৎপাদিত কেঁচো সার জমিতে প্রয়োগ করেন এবং তার সাথে জৈব কীটনাশক ব্যবহার করেন সাথে সাথে ফেরোমেন ফাদঁ ব্যবহারও করেন। তাছাড়াও তিনি ক্ষেত পরিদর্শনের সময় হাত দিয়ে পোকার ডিম, লার্ভা ধবংস করে ফেলেন। রোগাক্রান্ত গাছ দেখলেই তা মাটিতে ‍পুতেঁ ফেলেন। এতে করে তার গত বছরের তুলনায় খরচ অনেক কম হয়েছে। এবছর তিনি ১৮ শতক জায়গায় মোট খরচ করেন ২৮০০০/= টাকা বিক্রি করে মোট ৯৯০০০ টাকা। লাভ হয়েছে- (৯৯০০০- ২৮০০০)= ৭১০০০ টাকা। তিনি সর্বোচ্চ ৫০ টাকা ও সর্বোনিন্ম ৩০ টাকা দরে শশা বিক্রি করেছেন। এখন তিনি ঐ জমিতে আবারো শশার চাষ করেছেন ।

 Total Beneficiaries: 4000

Beneficiaries Criteria: The participants who have at least 50 decimal cultivable land (Own or hire) and full time farmers.

 Project Activities Picture:

View the embedded image gallery online at:
http://www.sdsbd.org/medias/9-sdscontent#sigProGalleria6318c2deda

 

Project Name: Skills for Employment Investment Program (SEIP)

Donor: Palli Karma-Sahayak Foundation(PKSF)

Duration: June, 2024

Project Summary:

শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি(এসডিএস) ১৯৯২ খ্রিঃ থেকে অদ্যবধী এই দীর্ঘ যাত্রায় ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম বাস্তবায়নের পাশাপাশি খরা বন্যা নদীভাঙ্গন ইত্যাদি প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় কর্মএলাকার অতিদরিদ্র অধিবাসীদের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে  দাতা সংস্থার সহায়তায় বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করে আসছে। বাংলাদেশ সরকারের ভিশন ২০২১ অনুযায়ী কারিগরী কর্মকান্ডে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার লক্ষ্যে ইতমধ্যে এসডিএস এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান এসডিএস টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইনিষ্টিটিউট (STTI) এর কার্যক্রম আলাদা ক্যাম্পাসে আরম্ভ  হয়েছে। আমরা জেনে Avkvwš^Z হয়েছি পিকেএসএফ তাদের ফান্ড ব্যবহারকারী উপকারভোগীদের জন্য Skill for Employment Investment Program (SEIP) প্রকল্পের মাধ্যমে আগামী ৩ বছরে ১৩টি ট্রেডে ১০,০০০ (দশ হাজার) জন কারিগরী জ্ঞান ও দক্ষতা সম্পন্ন জনশক্তি গড়ে তোলার কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। পিকেএসএফ এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসাবে এসডিএস এই বিশাল কর্মকান্ডে অনুগামী হতে আগ্রহি। উল্লিখিত সময়ের মধ্যে আমরা ৬টি ট্রেডে ১৩৫০ জন গ্রাজুয়েট গড়ে তুলতে বিভিন্ন অবকাঠামোগত স্থাপনা তৈরী করেছি। এই প্রতিষ্ঠানে নিম্নে উল্লিখিত ট্রেড অনুযায়ী দক্ষ প্রশিক্ষক, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এবং অভিজ্ঞ ব্যবস্থাপনা কাঠামো রয়েছে। চাহিদার ভিত্তিতে স্থানীয় ও জাতীয় ভাবে কর্মসংস্থানের জন্য আমরা শক্তিশালী নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার কাজ অব্যাহত রেখেছি। এছাড়া এসডিএস এর মাইক্রোক্রেডিট কার্যক্রম থেকে অর্থ সংস্থানের মাধ্যমে গ্রাজুয়েটগন ব্যক্তিগত এন্টারপ্রাইজ গড়ে তোলার সহযোগীতা পাবেন।

ক্রম নং

ট্রেড/কোর্সের নাম

কোর্সের মেয়াদ

প্রশিক্ষণার্থী সংখ্যা

মোট

১ বছর

২য় বছর

৩য় বছর

০১

আইটি সাপোর্ট সার্ভিস

৬ মাস

৫০ জন

৫০ জন

৫০ জন

১৫০ জন

০২

cøvw¤^s এন্ড পাইপ ফিটিং

৩ মাস

১০০ জন

১০০ জন

১০০ জন

৩০০ জন

০৩

ফ্যাশন গার্মেন্টস

৩ মাস

১০০ জন

১০০ জন

১০০ জন

৩০০ জন

০৪

মোবাইল সার্ভিসিং

৩ মাস

১০০ জন

১০০ জন

১০০ জন

৩০০ জন

০৫

ইলেকট্রনিক্স এন্ড ইলেকট্রিক ওয়ার্কস

৬ মাস

৫০ জন

৫০ জন

৫০ জন

১৫০ জন

০৬

ওয়েল্ডিং এন্ড ফেব্রিকেশন

৬ মাস

৫০ জন

৫০ জন

৫০ জন

১৫০ জন

 

মোট

৪৫০ জন

৪৫০জন

৪৫০জন

১৩৫০জন

Goal: গ্রাজুয়েটগন  বাজার উপযোগী কারিগরি জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে কর্মসংস্থান গড়ে নিয়ে নিজে ¯^vejw¤^ হবেন। পারিবারিক ও সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করে ইতিবাচক ভুমিকা রাখবেন।

Objective:

  • গ্রাজুয়েটগন  বাজার উপযোগী কারিগরি জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জন করবেন।
  • ৫০% গ্রাজয়েট ব্যক্তিগত এন্টরপ্রাইজ (স্ব কর্মসংস্থান) গড়ে তুলতে আগ্রহী হবেন।
  • গ্রাজুয়েটগন সামাজিক এবং নৈতিক মূল্যবোধ সম্পন্ন হবেন।
  • নুন্যতম ৭০% গ্রাজুয়েটের কর্ম সংস্থান হবে

Human Resource:

SEIP প্রকল্পের কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও প্রশিক্ষকদের নামের তালিকা ও পদবী

ক্রমিক নং

কর্মকর্তার নাম

পদবী

অতিরিক্ত দায়িত্ব

বি এম কামরুল হাছান

পরিচালক 

মাইক্রো ফিনেন্স,এস ডিএস

ফোকাল পারসন

SEIP প্রকল্প

আলী ইসলাম মৃধা

জব প্লেসমেন্ট অফিসার

 

SEIP প্রকল্প

মোঃ দেলোয়ার হোসেন

হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা

 

SEIP প্রকল্প

এস এম সালাহ উদ্দিণ

প্রশিক্ষক,

ইলেকট্রিক্যাল ইন্সটলেশন এন্ড মেন্টেনেন্স ট্রেড

SEIP প্রকল্প

মোঃ আবদুল কুদ্দুস

সহকারী প্রশিক্ষক,

ইলেকট্রিক্যাল ইন্সটলেশন এন্ড মেন্টেনেন্সট্রেড

SEIP প্রকল্প

 মোঃ সাফায়েত

প্রশিক্ষক

মোবাইল ফোন সার্ভিসিং ট্রেড

SEIP প্রকল্প

মোঃ মাইনুর হোসেন

সহকারী  প্রশিক্ষক

মোবাইল ফোন সার্ভিসিংট্রেড

SEIP প্রকল্প

 মেহেদী হাসান

প্রশিক্ষক

cøvw¤^s†UªW

SEIP প্রকল্প

 মোঃ আরমান হাওলাদার

সহকারী প্রশিক্ষক

cøvw¤^s†UªW

SEIP প্রকল্প

১০

মোঃ সাহাবুদ্দিন

প্রশিক্ষক

সুইং মেশিন অপারেশন্স

SEIP প্রকল্প

১১

সনেট বালা

সহকারী প্রশিক্ষক

সুইং মেশিন অপারেশন্স

SEIP প্রকল্প

 

Working Area: SDS Working Area

 

Project Activity:

  • উপযোগী প্রশিক্ষণার্থী বাছাই (পিকেএসএফ কর্তৃক নির্ধারিত ক্রাইটেরিয়া অনুযায়ী)।
  • মান সম্পন্ন প্রশিক্ষণ নিশ্চিতকরন ( জনবল, যন্ত্রপাতি, আবাসন, খাবার, সুপারভিশন ও মনিটরিং)।
  • ওয়ার্কসপ এচাটমেন্ট ট্রেনিং।
  • মূল্যায়ন।
  • সনদপত্র প্রদান।
  • ফলোআপ ও কর্ম সংস্থানে সহায়তা

 

Case Studies:

জীবন সংগ্রামে একধাপ এগিয়ে রেখা আক্তার ...........

রেখা আক্তার,বয়স ২০ বছর,  পিতা ঃ আলী মোহাম্মদ মুন্সি, মাতাঃ লিপি বেগম, গ্রাম ঃ ঢালী কান্দি, বিনোদপুর, ডাকঘরঃ চিকন্দী   উপজেলা ঃ শরীয়তপুর সদর, জেলা ঃ শরীয়তপুর। ২ বোন ও ১  ভাইসহ পরিবারের সংখ্যা ৫ জন। পরিবারে আর্থিক ¯^”QjZv নেই। বাবা জমিতে মজুরী হিসেবে কাজ করে কোন রকমে সংসার চালায়। তাই ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করার পর অদম্য ইচ্ছা থাকা সত্বেও লেখাপড়ার ইতি টানতে হয় তাকে। তার সম-বয়সী সবাইকে স্কুলে যেতে দেখে তারও ইচ্ছা জাগে স্কুলে যেতে কিন্তু সাধ থাকলেও সাধ্য নেই তার বাবার। সাড়াদিন মন মরা হয়ে বাড়িতে বসে থাকে। কোথাও যেতে মন চায়না । এরপর তাকে বিয়ে দিয়ে দেয়। কিন্তু সেই সুখ বেশি দিন টেকেনি। হঠাৎ তার ¯^vgxi স্ট্রোক হয় এবং সে মারা যায়। কি আর করা, রেখা আবার বাবার কাছে চলে আসে।  এতে সে তার বেচেঁ থাকার আশা হারিয়ে ফেলে। সারাক্ষন মন খুব খারাপ করে থাকে। আমাদের সমাজে মেয়েদের এমনিতেই গ্রহন যোগ্যতা কম। তার উপর রেখা বিধবা, ¯^vgx নেই, কোথাও গেলে দুর্নাম হওয়ার ভয় আছ্ে‌।  সে কোথাও যেথে চাইলে পারছেনা সমাজের দুর্নাম ওঠার ভয়ে। বিধবা হিসেবে সে  সামাজিক বিভিন্ন চাপে রয়েছে। আশেপাশের পরিবেশ কেমন যেন অচেনা হয়ে যেতে থাকে তার কাছে। সমাজে তার অবস্থান কোথাও নেই। লেখাপড়া ও করতে পারেনি কিংবা কোন কাজ করে যে, নিজের সময় ও কিছু অর্থ আয় করবে তা ও জানেনা। অস্থিরতা বেড়ে যায় রেখার মনে। একদিন সমিতিতে মাঠকর্মী আলোচনা করেন যে,  এসডিএস-পরিচালিত পিকেএসএফ এর আর্থিক সহযোগীতায় SEIP প্রকল্পের মাধ্যমে এসডিএস টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইনন্সিটিউট থেকে বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষন প্রদান করে থাকে। প্রশিক্ষন শেষে সনদপত্র দেয়া হয় এবং পাশাপাশি চাকুরী বা ব্যবসায় করার জন্য নহযোগিতা প্রদান করা হয়। এ কথা শুনে রেখা SEIP প্রকল্পের মাধ্যমে এসডিএস টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইনন্সিটিউট থেকে ০৫ wW‡m¤^iÕ16 - ০৪ মার্চ’২০৭৬ খ্রিঃ সময়ে ৩ মাস মেয়াদি ফ্যাশন গামের্ন্টস ট্রেডের ২য় ব্যাচে দক্ষতার সাথে কোর্স সমাপ্ত করে। TTS অনুযায়ি তার রেজিস্ট্রেশন নং ২৫০০০০৫২২২ এবং  রোল নং SDS-FG -B2- 015  । তার মোবাইল b¤^i ০১৭৪৫-৫৬৩৬৮৭। তার  মতে প্রশিক্ষন প্রক্রিয়া, পরিবেশ, খাওয়া ও আবাসন ব্যবস্থা খুবই ভাল ছিল। তাই আমরা প্রশিক্ষনটি সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি।

তিন মাস প্রশিক্ষন শেষে সফলতার সাথে সনদপত্র অর্জন করে । ফ্যাশন গার্মেন্টস ট্রেডে ক্লাস চলা কালেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কারো অনুগ্রহ হয়ে ¯^í বেতনে চাকুরী করবে না সে। শুরু থেকেই তার ইচ্ছা ছিল সে নিজে কিছু একটা করবে। তার যে ¯^cœ নিয়ে ফ্যাশন গার্মেন্টস ট্রেডে ভর্তি হয়েছিল, রেখা সনদপত্র পাওয়ার পর থেকেই সে ¯^‡cœi পথেই হাটছিল। রেখা তার মায়ের মাধ্যমে এসডিএস সমিতি থেকে ২০,০০০ টাকা ঋণ নিয়ে একটি সেলাই মেশিন ও কিছু থান কাপড় ক্রয় করে নিজের বাড়িতেই টেইলার্সের দোকান দেন। গ্রামে গ্রামে গিয়ে সেলাইয়ের জন্য কাজ সংগ্রহ করে। বাজরের চেয়ে মজুরী কম নেয়াতে তার কাজের পরিধি বাড়তে থাকে। প্রশিক্ষনলব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে অল্প দিনেই রেখা সুনাম অর্জন করতে থাকে। প্রথম মাসেই রেখা আয় করে প্রায় ৫৫৮৫ টাকা। প্রথম থেকেই থান কাপড়ের ব্যবসা ভাল চলছিল তাই সে দুই মাস অতিবাহিত হওয়ার পর ৩০ টি  থ্রি-পিস উঠায়। সেগুলো সে ৩০ দিনেই বিক্রি করে ফেলে প্রায় ৭৫০০ টাকা লাভে এবং সাথে সাথে মজুরী আয় হয় প্রায় ৪২০০ টাকা। দিন দিন তার আয় বাড়তে থাকে । আয়ের টাকা দিয়ে সে প্রতি সপ্তাহে ৫৫০ টাকা ( কিস্তি ৫০০ টাকা ও সঞ্চয় জমা করে ৫০ টাকা) কিস্তি পরিেেশাধ করছে। পরিবারেও মোটা অংকের আার্িথক সহায়তাও করছে। তার ছোট ভাইটিকে পার্শ্ববর্তী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শেণিতে ভর্তি করিয়ে দিয়েছে। তার ভাইয়ের লেখাপড়ার খরচ রেখা নিজেই বহন করে। বাবা মা রেখার এ অগ্রগতি দেখে অনেক খুশি।

¯^í দিনেই রেখা আক্তারের  আর্থিক ¯^”QjZv চলে আসে। এখন রেখা আক্তার নিজের ¯^vaxb মতো চলাফেরা করছে। বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানে যোগদান করছে। তার গ্রামের লোকজন  রেখাকে কে নিয়ে গর্ব করে। তারা আজ তাকে পরম মমতায় কাছে টেনে নিয়েছে। তারাই আজ বিভিন্ন লোকের কাছে গল্প করে বেড়ায় যে রেখা নিজের কষ্টের কাছে হার মানেনি। তার বাবা মায়ের সংসারে আজ সে বোঝা না হয়ে সম্পদে পরিনত হয়েছে। রেখা ভবিষ্যতে তার বাড়িতে একটি মিনি গামের্ন্টস করতে চায় এবং সে সেখানে তার মতো অসহায় A¯^”Q পরিবারের মেয়েদের কাজ শিখিয়ে তার গড়ে তোলা মিনি গামের্ন্টসে চাকুরী দিয়ে mvej¤^x করতে চায়।

 

অধ্যবসায় থাকলে জীবনে উন্নতি করা যায় তার প্রমান দেখিয়ে দিয়েছেন রোমান মিয়া.....

রোমান মিয়া, বয়স ১৯ বছর, যুদ্ধ জয়ের ¯^‡cœ বিভোর এক পরিশ্রমি যোদ্ধা। বাবার নাম সেকান্দার ভুইয়া ও মায়ের নাম রিজিয়া বেগম। ঠিকানা ঃ গ্রামঃ পূর্ব কাজি কান্দি, ডাকঘরঃ বিকে নগর, উপজেলাঃ জাজিরা, জেলাঃ শরীয়তপুর । বাবার বয়স ৪৬ বছর,  বাবার সংসারে তারা ভাইবোনসহ মোট  ৫ জন।  মোট ৫ জনকে নিয়ে তাদের সংসার। পরিবারের  উপার্জনক্ষম ব্যক্তি তার বাবা একজন কৃষক ও  কৃষিকাজ করে কোন রকমে আয় করে সে। তাদের সম্পদ বলতে ছিল একটি দো-চালা টিনের ঘর, একটি রান্না ঘর, একটি কাঠের চৌকি, একটি টিভি এবং  সে এসএসসি পর্যন্ত পড়াশুনা করে শেষ করতে হয়। কোন দক্ষতামূলক বিশেষ কোন প্রশিক্ষন না থাকায় কোন কাজ ও করতে পারছিল না। রোমান মিয়া এসএসসি পর্যন্ত লেখাপড়া করে আর লেখাপড়া করতে পারেনি।  কোন হাতের কাজও সে জানত না। বেকার ঘোরাফেরা করত। বাবা মায়ের বকুনী খেত কাজ না করতে পারার জন্য। বেশির ভাগ সময়েই সে আড্ডা করে বেড়াত। এলাকায় কোন কাজের সুযোগও ছিলনা।  দু একজন বন্ধু বান্ধব ছিল, তাদের সাথে আড্ডা দিয়েই সময় কাটত তার। তবে এলাকায় কোন খেলাধূলা হলে বা কোন অনুষ্ঠান হলে সে কখনো সেখানে ডাক পেতনা। এ অবস্থায় সে মানসিকভাবে হতাশ হয়ে পড়েছে। একদিন রোমান মিয়া এসডিএস-এর শাখা ব্যবস্থাপকের  কাছে জানতে পেরে সে এসডিএস টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইন্সটিটিউট (STTI)-Gi অধ্যক্ষকে ফোন করে যোগাযোগ করে জানতে পারে যে, এসডিএস পিকেএসএফ-এর অর্থায়নে  SEIP- প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশের বেকার যুবক-যুব নারীদের বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তুলছে।  গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক সহায়তা এবং পিকেএসএফ এর ব্যবস্থাপনায় এসডিএস পরিচালিত SEIP প্রকল্পের মাধ্যমে ইলেকট্রনিক্স এন্ড ইলেকট্রিক্যাল ওয়ার্ক  ট্রেডে ৬ মাস মেয়াদী  প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সাথে সাথে রোমান মিয়া উক্ত ট্রেডে ৬ মাস মেয়াদি কোর্সে ভর্তি হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। সে ২য়  ব্যাচে ভর্তির জন্য বাছাই পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে নির্বাচিত হয়। সে ১৫ মার্চ’২০১৭ থেকে ১৪ আগষ্ট’২০১৭ খ্রিঃ সময়ে পরিচালিত ৬ মাস মেয়াদি ইলেকট্রনিক্স এন্ড ইলেকট্রিক্যাল ওয়ার্ক ট্রেডে (২য় ব্যাচ) দক্ষতার সাথে কোর্স সমাপ্ত করে। TTS অনুযায়ি তার রেজিস্ট্রেশন নং ২৫০০০০৬৭৪৩ এবং  রোল নং SDS-EW-B2- 011 । তার মোবাইল b¤^i  ০১৭৪৫-৫৩৩১১৭। ছয় মাস সফল প্রশিক্ষন গ্রহন শেষে সনদপত্র অর্জন করে। তার  মতে “ প্রশিক্ষন প্রক্রিয়া, পরিবেশ, খাওয়া ও আবাসন ব্যবস্থা খুবই ভাল ছিল। তাই আমরা প্রশিক্ষনটি সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি।”

রোমান মিয়া প্রশিক্ষন চলাকালীন জব প্লেসমেন্ট অফিসারের ব্যবসায় উন্নয়ন বিষয়ক লেকচার শুনে আত্ন-কর্মসংস্থানে উদ্ধুদ্ধ হয় এবং সে একটি ইলেকট্রিক্যাল হাউজ ওয়্যারিংয়ের একটি দোকান বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ার পরিকল্পনা করে। কিন্ত অর্থের অভাবে সে তা করতে পারছিলনা। অবশেষে সে এসডিএস-এর বিকে নগর শাখার শাখা ব্যবস্থাপক-এর সাথে যোগাযোগ করে ৫০০০০ টাকা ঋন নিয়ে কিছু যন্ত্রপাতি (ইলেকট্রনিক্স এন্ড ইলেকট্রিক্যাল ওয়ার্ক)  ক্রয় করে কাজ শুরু করে। পরে আনন্দ বাজারে একটি দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে কিছু ইলেকট্রিক সামগ্রীর ব্যবসা শুরু করে। কিছু ভিজিিিটং কার্ড ও কয়েকটি ব্যানার ছাপিয়ে তার কাজের বিজ্ঞাপন দিয়ে দেয়। এতে তার কাছে প্রচুর কাজ আসতে থাকে। স্থানীয় বাজারে আর কোন মিস্ত্রি  না থাকায় তার কাজের প্রচুর চাহিদা তৈরী হয়।  সে স্থাণীয়ভাবে বেশ কয়েকটি পাঁকা দালানের ইলেকট্রিক্যাল হাউজ ওয়্যারিংয়ের কাজ চুক্তিতে নেয়। সাথে সে আরও দুই/তিনজন কে সহকারী হিসেবে নিয়োগ করে। তাদের প্রথ্যেককে  সে প্রতিদিন ৩০০/- টাকা করে মজুরী প্রদান করে। কাজ শুরু করার পর থেকে তার কাজের  চাহিদা দিনদিন বাড়তে থাকে।  তার এলাকায় কাজ করে ও ইলেকট্রিক সামগ্রীর ব্যবসা করে মাসে তার প্রায় ১৭/১৮ হাজার টাকা আয় হয়। রোমান মিয়া বর্তমানে ১৮০০০/- টাকা মাসে আয় করে। বাড়িতে তার বাবা মা ও একভাই , এক বোন রয়েছে। ভাই স্কুলে অষ্টম শ্রেণি ও বোন ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে এবং তাদের পড়ালেখার খরচ সে নিজেই বহন করে।  তার বাবার সংসার এখন ভাল ভাবে পরিচালনা করতে পারছে। বর্তমানে রোমান মিয়া যে আয় করছে তাতে সে অনেক টাকা জমিয়ে সে নিজের এলাকায় একটি ইলেকট্রিক্যাল হাউজ ওয়ারিংয়ের মালামাল-এর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান  করতে চায়।  পাশাপাশি তার দোকানে অন্তত দুই/তিনজন স্থানীয় ছেলেকে তার দোকানে কাজ বা চাকুরী দিতে পারে তার ব্যবস্থা সে করবে যাতে এলাকার গরীব ২/৩ তিনজন ছেলে কাজ শিখে নিজেরা ¯^vej¤^x হতে পারে।

 

রোমান বলেন আমি লেখাপড়া খুব বেশি করতে পারিনি, সংসারে অনেক অভাব ছিল, তাই সমাজে আমার ভাল অবস্থা ছিলনা। একদিন বিকে নগর শাাখার শাখা ব্যবস্থাপকের মাধ্যমে জানতে পেরে এসটিটিআইতে যোগাযোগ করি, এরপর ইলেকট্রনিক্স এন্ড ইলেকট্রিক্যাল ওয়ার্ক ট্রেডে ৬ মাস মেয়াদি কোর্সে ভর্তি হই।  কাজ শিখে ব্যবসা করে বর্তমানে আমি ১৮০০০ টাকা মাসে আয় করি। বর্তমানে আমি নিজেই হেড মিস্ত্রির মতো কাজ করতে পারি ইনশাল্লাহ। আমার আশা আমি আমার এলাকায় একটি ইলেকট্রিক্যাল ওয়ার্ক-এর একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করতে চাই। উক্ত প্রতিষ্ঠানে আমি আমার এলাকার ২/৩ জন গরীব ছেলেকে কাজ দিতে চাই যাতে এলাকার গরীব ছেলেরা কাজ করে নিজেরা ¯^vej¤^x হতে পারে”

 Budget: 15,936,000

 Total Beneficiaries: 900 Trainees (36 Batch*25)

 Beneficiaries Criteria:

 Project Activities Picture: 10 Copies

 

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

এসডিএস ও পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশেনের যৌথ অর্থায়নে পরিচালিত  স্থায়িত্বশীল ক্ষুদ্রঋন কার্যক্রমের প্রসারতা বৃদ্ধির জন্যে প্রতিভাবান মেধা সম্পন্ন আগ্রহী ও উদ্যমী প্রার্থীদের ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ তথা দক্ষ ব্যবস্থাপক হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে বাংলাদেশী নাগরিকদের নিকট থেকে "প্রবেশনারী সহকারী ব্যবস্থাপক" পদে আবেদন আহবান করা যাচ্ছে। প্রার্থীদেরকে গ্রামীণ পরিবেশে  ও মটর সাইকেল চালিয়ে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে।

 প্রবেশনারীকালঃ

  • প্রথম ৬মাস মাঠকর্মী হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

  • পরবর্তী ৩মাস হিসাব ও সফওয়ার সংক্রান্ত দায়িত্ব পালন করতে হবে।

  • অবশিষ্ট ৩মাস ব্যবস্থাপকীয় কার্যক্রমের দায়িত্ব পালন করতে হবে। সফল ভাবে ১বছর প্রবেশনারীকাল সম্পূর্ন্ সাপেক্ষে চুড়ান্ত নিয়োগ প্রদান করা হবে।

 Job Responsibilities:   N/A

 Employment Status:   Full-time

 Educational Requirements

  • বিএ/স্নাতক / স্নাতকোত্তর।

Experience Requirements

  • N/A

Additional Requirements

  • ড্রাইভিং লাইসেন্স সহ মটর সাইকেল চালনো দক্ষদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

  • কম্পিউটার (M.S Word, Excel, Internet & MIS) দক্ষ প্রার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

Job Location

শরীয়তপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, মুন্সিগঞ্জ, চাঁদপুর ও ঢাকা ।

 Salary

  • বেতন ভাতা 20,000 টাকা (সর্বসাকুল্যে)

Compensation & Other Benefits

  • এছাড়াও সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী উৎসব  বোনাস ও বৈশাখী ভাতা প্রাপ্য হইবেন।

  • চাকুরী নিয়মিত হলে নিয়মিত বেতন কাঠামো, বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট, প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্রাচুইটি ২টি উৎসব বোনাস,ও বৈশাখী ভাতা , কর্মী কল্যাণ তহবিল ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হবে।

Job Source

বিডিজবস ডট কম অনলাইন জবপোস্টি

Apply Instruction
আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পত্রে নাম, পিতা/স্বামীর নাম, মাতার নাম, স্থায়ী ঠিকানা, ফোন/মোবাইল ফোন নম্বর, জন্ম তারিখ, বয়স,শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা উল্লেখ করতে হবে। প্রার্থীকে আবেদন পত্রের খামের উপর অবশ্যই পদের নামের পাশাপাশি প্রকল্পের নাম উল্লেখ করতে হবে। দরখাস্তের সাথে ০৩ কপি সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজ সত্যায়িত ছবি, শিক্ষাগত যোগ্যতার মূল সনদ, নাগরিকত্ব সনদ পত্র, জাতীয় পরিচয় পত্র ও অভিজ্ঞতার সনদ পত্র সমূহের সত্যায়িত অনুলিপি সংযুক্ত করতে হবে।
আগামী ৩০ আগষ্ঠ  ২০১৮ তারিখের মধ্যে আবেদনপত্র ডাকযোগে,-ই-মেইলে (This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.) অথবা সরাসরি সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। বাছাইকৃত প্রার্থীদেরকে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের জন্য ফোনে অথবা ই-মেইলে জানিয়ে দেয়া হবে।
নিয়োগের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।
নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য কোন টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।
Application Deadline : August 30, 2018

 Vacancy- 01

 শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (এসডিএস) সংস্থায়, পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ও সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত "কৃষি ইউনিট এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ ইউনিট" এ উল্লেখিত পদ সমূহে যোগ্য, উদ্যোগী ও আগ্রহী বাংলাদেশী নাগরিকদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহবান করা যাচ্ছে। প্রার্থীদেরকে গ্রামীণ পরিবেশে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে।

 Job Responsibilities:   N/A

 Employment Status:   Full-time

 Educational Requirements

  • প্রাণিসম্পদ বিষয়ে ডিপ্লোমা/ কৃষি ডিপ্লোমা পাশ (প্রাণি সম্পদের উপর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত)।

 Experience Requirements

  • At least 2 year(s)

 Additional Requirements

 Age at most 35 years

  • অভিজ্ঞতাঃ উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডে নূন্যতম ২ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কম্পিউটারে (MS Word, MS Excel) কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

 

Job Location

শরীয়তপুরের যে কোনো উপজেলায়

 Salary

  • মাসিক বেতন ১৫,৫০০/- টাকা। যাতায়াত ভাতা ৭০০/- টাকা, মোবাইল বিল ৩০০/- টাকা, সর্বমোট ১৬,৫০০/- টাকা।

 Compensation & Other Benefits

  • এছাড়াও প্রকল্প/সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী দুপুরের খাওয়া, উৎসব বোনাস ও বৈশাখী ভাতা পাবেন।

 Job Source

বিডিজবস ডট কম অনলাইন জবপোস্টিং

Apply Instruction
আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পত্রে নাম, পিতা/স্বামীর নাম, মাতার নাম, স্থায়ী ঠিকানা, ফোন/মোবাইল ফোন নম্বর, জন্ম তারিখ, বয়স,শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা উল্লেখ করতে হবে। প্রার্থীকে আবেদন পত্রের খামের উপর অবশ্যই পদের নামের পাশাপাশি প্রকল্পের নাম উল্লেখ করতে হবে।
দরখাস্তের সাথে ০৩ কপি সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজ সত্যায়িত ছবি, শিক্ষাগত যোগ্যতার মূল সনদ, নাগরিকত্ব সনদ পত্র, জাতীয় পরিচয় পত্র ও অভিজ্ঞতার সনদ পত্র সমূহের সত্যায়িত অনুলিপি সংযুক্ত করতে হবে।
আগামী ৩০ আগষ্ঠ  ২০১৮ তারিখের মধ্যে আবেদনপত্র ডাকযোগে,-ই-মেইলে (This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.) অথবা সরাসরি সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। বাছাইকৃত প্রার্থীদেরকে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের জন্য ফোনে অথবা ই-মেইলে জানিয়ে দেয়া হবে।
নিয়োগের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।
নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য কোন টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।
Application Deadline : August 30, 2018

 প্রোগ্রাম এ্যাসিসটেন্ট টেকনিক্যাল (পিএ-টেক) কৃষি

 Vacancy- 01

 শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (এসডিএস) সংস্থায়, পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ও সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত "কৃষি ইউনিট এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ ইউনিট" এ উল্লেখিত পদ সমূহে যোগ্য, উদ্যোগী ও আগ্রহী বাংলাদেশী নাগরিকদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহবান করা যাচ্ছে। প্রার্থীদেরকে গ্রামীণ পরিবেশে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে।

 Job Responsibilities :  N/A

 Employment Status:   Full-time

 Educational Requirements

  • ৪ বৎসর মেয়াদি কৃষি ডিপ্লোমা পাশ।

 Experience Requirements

  • At least 2 year(s)

 Additional Requirements

 Age at most 35 year

 অভিজ্ঞতাঃ উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডে নূন্যতম ২ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কম্পিউটারে (MS Word, MS Excel) কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

 Job Location

শরীয়তপুরের যে কোনো উপজেলায়

 Salary

  • মাসিক বেতন ১৫,৫০০/- টাকা। যাতায়াত ভাতা ৭০০/- টাকা, মোবাইল বিল ৩০০/- টাকা, সর্বমোট ১৬,৫০০/- টাকা।

 Compensation & Other Benefits

  • এছাড়াও প্রকল্প/সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী দুপুরের খাওয়া, উৎসব বোনাস ও বৈশাখী ভাতা পাবেন।

 Job Source

বিডিজবস ডট কম অনলাইন জবপোস্টিং

Apply Instruction
আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পত্রে নাম, পিতা/স্বামীর নাম, মাতার নাম, স্থায়ী ঠিকানা, ফোন/মোবাইল ফোন নম্বর, জন্ম তারিখ, বয়স,শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা উল্লেখ করতে হবে। প্রার্থীকে আবেদন পত্রের খামের উপর অবশ্যই পদের নামের পাশাপাশি প্রকল্পের নাম উল্লেখ করতে হবে।
দরখাস্তের সাথে ০৩ কপি সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজ সত্যায়িত ছবি, শিক্ষাগত যোগ্যতার মূল সনদ, নাগরিকত্ব সনদ পত্র, জাতীয় পরিচয় পত্র ও অভিজ্ঞতার সনদ পত্র সমূহের সত্যায়িত অনুলিপি সংযুক্ত করতে হবে।
আগামী ৩০ আগষ্ঠ  ২০১৮ তারিখের মধ্যে আবেদনপত্র ডাকযোগে,-ই-মেইলে (This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.) অথবা সরাসরি সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। বাছাইকৃত প্রার্থীদেরকে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের জন্য ফোনে অথবা ই-মেইলে জানিয়ে দেয়া হবে।
নিয়োগের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।
নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য কোন টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।
Application Deadline : August 30, 2018

 প্রোগ্রাম এ্যাসিসটেন্ট টেকনিক্যাল (পিএ-টেক) মৎস ইউনিট

Vacancy- 01

 শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (এসডিএস)সংস্থায়, পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ও সংস্থার নিজস্ব অর্থায়নে পরিচালিত "কৃষি ইউনিট এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ ইউনিট" এ উল্লেখিত পদ সমূহে যোগ্য, উদ্যোগী ও আগ্রহী বাংলাদেশী নাগরিকদের নিকট থেকে দরখাস্ত আহবান করা যাচ্ছে। প্রার্থীদেরকে গ্রামীণ পরিবেশে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে।

Job Responsibilities:   N/A

Employment Status:   Full-time

Educational Requirements

  • ৪ বৎসর মেয়াদি মৎস ডিপ্লোমা পাশ (মৎস ডিপ্লোমা না থাকলে ২ বৎসরের অভিজ্ঞতা সহ কৃষি ডিপ্লোমা পাশ হতে হবে)।

Experience Requirements

  • At least 2 year(s)

Additional Requirements

  • Age at most 35 years

  • অভিজ্ঞতাঃ উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডে নূন্যতম ২ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। কম্পিউটারে (MS Word, MS Excel) কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

Job Location

শরীয়তপুরের যে কোনো উপজেলায়

Salary

  • মাসিক বেতন ১৫,৫০০/- টাকা। যাতায়াত ভাতা ৭০০/- টাকা, মোবাইল বিল ৩০০/- টাকা, সর্বমোট ১৬,৫০০/- টাকা।

Compensation & Other Benefits

  • এছাড়াও প্রকল্প/সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী দুপুরের খাওয়া, উৎসব বোনাস ও বৈশাখী ভাতা পাবেন।

Job Source

বিডিজবস ডট কম অনলাইন জবপোস্টিং

Apply Instruction
আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন পত্রে নাম, পিতা/স্বামীর নাম, মাতার নাম, স্থায়ী ঠিকানা, ফোন/মোবাইল ফোন নম্বর, জন্ম তারিখ, বয়স,শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা উল্লেখ করতে হবে। প্রার্থীকে আবেদন পত্রের খামের উপর অবশ্যই পদের নামের পাশাপাশি প্রকল্পের নাম উল্লেখ করতে হবে।
দরখাস্তের সাথে ০৩ কপি সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজ সত্যায়িত ছবি, শিক্ষাগত যোগ্যতার মূল সনদ, নাগরিকত্ব সনদ পত্র, জাতীয় পরিচয় পত্র ও অভিজ্ঞতার সনদ পত্র সমূহের সত্যায়িত অনুলিপি সংযুক্ত করতে হবে।
আগামী ৩০ আগষ্ঠ  ২০১৮ তারিখের মধ্যে আবেদনপত্র ডাকযোগে,-ই-মেইলে (This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.) অথবা সরাসরি সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। বাছাইকৃত প্রার্থীদেরকে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের জন্য ফোনে অথবা ই-মেইলে জানিয়ে দেয়া হবে।
নিয়োগের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।
নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহনের জন্য কোন টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।
Application Deadline : August 30, 2018

 

Highlights

"দেশের সেবায় যে যার অবস্থান থেকে সমর্থ অনুযায়ী কাজ করলে জাতি উপকৃত হবে,দেশ হবে সমৃদ্ধশালী"------সমৃদ্ধি কর্মসূচি এসডিএস আলাওলপুর এর অধীনে ১০০ পরিবারের মধ্যে সেনেটারী লেট্রিনের উপকরন বিতরন ও স্বাস্থ্য ক্যাম্পে শরীয়তপুরে সুযোগ্য জেলা প্রশাসক। আজ ১৪ মে ২০১৮ ইং শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলার আলাওলপুর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সে পল্লীকর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ও সহযোগী সংস্থা এসডিএস এর যৌথ সহযোগিতায় সম্পন্ন হলো ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের চতুর্থ ধাপে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য ক্যাম্প ও ১০০ দরিদ্র পরিবারের মধ্যে সেনেটারী লেট্রিনের ১০০ সেট উপকরন বিতরন ( জন প্রতি ৫ টি রিং,১ টি ঢাকনা,১ টি স্লাব,১ টি ৫ ফুট জয়েন্ট পাইপ,১টি ৫ ফুট গ্যাস পাইপ,১ টি সাইপেন,১ টি ক্যাপ)। উক্ত রিং স্লাব বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,শরীয়তপুরের সুযোগ্য জেলা প্রশাসক জনাব কাজী আবু তাহের,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গোসাইরহাট উপজেলার সুযোগ্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব মোহাম্মদ মামুন শিবলী। সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন জনাব মোঃ উসমান গনি বেপারী, চেয়ারম্যান আলাওলপুর ইউনিয়ন পরিষদ।